লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যা মামলার রায় আজ মঙ্গলবার ঘোষণা করা হবে। ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান গত ৪ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের এ দিন ধার্য করেন।

আদালত সূত্র জানায়, মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় মামলাটি রায়ের জন্য আদালতের কার্যতালিকায় রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গোলাম ছারোয়ার খান জাকির সাংবাদিকদের বলেছেন, এই মামলায় তিন আসামি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা কীভাবে হত্যা করেছেন, তার সব বর্ণনা জবানবন্দিতে আছে। অন্যান্য সাক্ষী ও আসামির জবানবন্দি সব মিলিয়ে এই আসামিরা যে হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিলেন তা আমরা আদালতের সামনে তুলে ধরেছি। আসামিরা সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড পাবেন বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী নজরুল ইসলাম বলেন, আসামিদের সাজা দেওয়ার মতো কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি। আমরা আসামিদের খালাস দাবি করেছি।

এ মামলার আসামিরা হলেন- বরখাস্ত মেজর সৈয়দ মোহাম্মদ জিয়াউল হক ওরফে জিয়া, মোজাম্মেল হুসাইন ওরফে সায়মন (সাংগঠনিক নাম শাহরিয়ার), আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ, আকরাম হোসেন ওরফে আবির, আরাফাত রহমান ও শফিউর রহমান ফারাবি। মেজর জিয়া এবং আকরাম হোসেন পলাতক। অপর চার আসামি কারাগারে আছেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে মোট ৩৪ সাক্ষীর মধ্যে ২৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। গত বছরের ১৩ মার্চ আদালতে ছয় আসামির বিরুদ্ধে মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। এরপর একই বছরের ১ আগস্ট ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ (চার্জ) গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর নির্দেশ দেন আদালত।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা থেকে ফেরার পথে রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় টিএসসির সামনে অভিজিৎ ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর মারা যান অভিজিৎ। ওই ঘটনায় অভিজিতের বাবা অধ্যাপক অজয় রায় পরদিন শাহবাগ থানায় হত্যা মামলা করেন।

Sharing is caring!