মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে ১৫৪ রানে এগিয়ে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। তবে শেষ বিকেলে ৩টি উইকেট তুলে নিয়ে স্বস্তি নিয়েই হোটেলে ফিরেছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি সাদা পোশাকে দেশের পক্ষে দ্রুততম একশ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

স্বাগতিক দল ২৯৬ রানে গুটিয়ে গেলে ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১১৩ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নামে উইন্ডিজ। তবে এই ইনিংসের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিল টাইগারদের শরীরী ভাষা। যার ফলও দ্রুতই হাতেনাতে পায় বাংলাদেশ। ১১ রানের মাথায় ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েটকে শিকার করেন নাঈম হাসান। উইকেটরক্ষকের গ্লাভসে ধরা পড়লেও আম্পায়ার প্রথমে না দিলে রিভিউ নিয়ে উইকেটটি আদায় করে স্বাগতিকরা।

সফরকারীদের দ্বিতীয় উইকেটটি শিকার করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। শাইনে মোসেলেকে শিকারের মাধ্যমে টেস্ট ক্রিকেটে ১০০ উইকেটের ক্লাবে প্রবেশ করেন এই ডানহাতি স্পিনার। চতুর্থ বাংলাদেশি হিসেবে এই এলিট ক্লাব নাম লেখালেন মিরাজ। বাংলাদেশিদের মধ্যে ১০০ উইকেট শিকারে দ্রুততম হিসেবেও নতুন রেকর্ড করেছেন এই তরুণ। যাতে দলীয় ২০ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

পরে তাইজুল ইসলামের বলে বোল্ড হয়ে বাংলাদেশের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন জন ক্যাম্পবেল। এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের ভাগ্য কিছুটা খারাপই বলতে হবে। বলটি যে তার স্ট্যাম্প ছুঁয়ে যায়, তা সে ঘুণাক্ষরেও টের পায়নি। ফলে ৩৯ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আজ শনিবার তৃতীয় দিন শেষে ক্যারিবীয়দের সংগ্রহ ওই ৩ উইকেটে ৪১ রান। যাতে লিড বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫৪।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংসে সংগ্রহ করেছিল ৪০৯ রান। জবাবে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে সংগ্রহ করে ২৯৬ রান। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭১ রানের ইনিংস খেলেন লিটন দাস। এছাড়া মেহেদী হাসান মিরাজ ৫৭ ও মুশফিকুর রহিম ৫৪ রান করেন। তামিম ইকবালের ব্যাট থেকে আসে ৪৪ রান। অধিনায়ক মোমিনুলের ব্যাট থেকে আসে ২১ রান। বলার মতো রান করতে পারেননি বাকি ব্যাটসম্যানরা।

একাই পাঁচটি উইকেট শিকার করেছেন ক্যারিবীয় দৈত্যাকার স্পিনার রাহকীম কর্নওয়াল। যা পঞ্চম টেস্ট খেলতে নামা দানবীয় স্পিনার ক্যারিয়ারে প্রথম পাঁচ উইকেট। এছাড়া শ্যানন গ্যাব্রিয়েল ৩টি ও আলজারি জোসেফ ২টি উইকেট শিকার করেন।

Sharing is caring!