শেষ হলো দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিনের খেলা। সময় গড়ানোর সাথে সাথে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশ নিজেদের হাতে নিয়ে নিলেও ফের চিত্রপটে সেই এনক্রুমাহ বোনার। বিপর্যয়ের মাঝেও বুক চিতিয়ে লড়াই করে ফিফটি তুলে নিলেন অভিষেক ম্যাচে ৮৬ রান করে ম্যাচ জেতানো অলরাউন্ডার। যাতে দিন শেষে অনেকটাই স্বস্তিতে সফরকারীরা।

আজ বৃহস্পতিবার প্রথম দিনের খেলা শেষে ৯০ ওভারে উইন্ডিজের স্কোর ৫ উইকেটে ২২৩ রান। বোনার ১৭৩ বল মোকাবেলায় ছয়টি চারে অপরাজিত আছেন ৭৪ রান নিয়ে, সঙ্গে আছেন ৪৬ বলে একটি চারে ২২ রান করা ক্যারিবীয় শ্বেতাঙ্গ উইকেটকিপার জসুয়া ডা সিলভা।

স্বাগতিকদের পক্ষে স্পিনার তাইজুল ইসলাম ও পেসার আবু জায়েদ রাহী নিতে পেরেছেন দুটি করে উইকেট। এছাড়া বাকি উইকেটটি ঝুলিতে পুরেছেন এই টেস্টে ফেরা সৌম্য সরকার।

এর আগে দিনের প্রথম সেশনে বলতে গেলে পাত্তাই পায়নি বাংলাদেশ। ৮৪ রানে ওয়েস্ট ইন্ডজের মাত্র ১টি উইকেট তুলে নিতে পারে টাইগাররা। তবে দ্বিতীয় সেশনে ঘুরে দাঁড়ায় মমিনুল হকের দল। ৬২ রানের বিনিময়েই ফিরিয়ে দেয় সফরকারীদের ৩ ব্যাটসম্যানকে।

ওপেনিং জুটিতে ক্রেইগ ব্রাথওয়েট এবং জন ক্যাম্পবেল ৬৬ রান যোগ করেন। এরপর বাংলাদেশের হয়ে প্রথম আঘাত হানেন তাইজুল ইসলাম। এই বাঁহাতি অর্থোডক্স স্পিনারের লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফেরেন ক্যাম্পবেল। ৬৮ বলের মোকাবেলায় ৫ চার এবং ১টি মাত্র ছয়ের সাহায্যে ৩৬ রান করেন ক্যারিবীয় বাঁহাতি হার্ডহিটার।

এরপর লাঞ্চ থেকে ফিরে শাইনি মুসেলের উইকেট তুলে নেন চট্টগ্রাম টেস্টে একাদশের বাইরে থাকা রাহী। কিছুক্ষণ পর সৌম্যের বলে নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিফটি বঞ্চিত হন সফরকারী অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েট। দ্বিতীয় সেশন শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগে চট্টগ্রাম টেস্টের নায়ক কাইল মায়ার্সকেও নিজের শিকারে পরিণত করেন রাহী।

আর শেষ সেশনে এসে জার্মেইন ব্লাকউডকে তুলে নিয়ে ভালো কিছুরই ইঙ্গিত দেন তাইজুল। এর আগে ব্লাকউডের (২৮) সঙ্গে ৬২ রানের অনবদ্য জুটি গড়েন বোনার। তবে শেষ পর্যন্ত আর কোনও বিপর্যয় হতে দেননি প্রথম টেস্ট জয়ের অন্যতম নায়ক এনক্রুমাহ বোনার ও জসুয়া ডা সিলভা। প্রায় ১৮ ওভার টিকে থেকে ৪৩ রানের জুটি গড়ে অবিচ্ছিন্ন থাকেন এই দুজন। যাতে সম্মানজনক স্কোরের পথে উইন্ডিজ।

Sharing is caring!