ডেস্ক নিউজঃ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর মুখপত্র মিয়াওয়াদি টিভি এক ঘোষণায় বলেছে যে, ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট মিয়ন্ত সোয়ে দেশটির প্রধান তিনটি বিভাগের ক্ষমতা সেনাপ্রধান মিন অং লাইংয়ের কাছে হস্তান্তর করেছেন। এর মধ্য দিয়ে দেশটির পুরো নিয়ন্ত্রণ সেনাপ্রধানের হাতে চলে গেল।

২০০৮ সালের সংবিধান অনুযায়ী তার হাতে ক্ষমতা ন্যস্ত করা হয়েছে বলে জানানো হয়। মিয়ানমারের আইনসভা, নির্বাহী বিভাগ এবং বিচার বিভাগ এখন সেনাপ্রধানের হাতে।

আজ সোমবার সকালে মিয়ানমারের রাষ্ট্রপতি উইন মিন্ট, ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সু চি সহ শাসক দলের শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতারের পর ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন মিয়ন্ত সোয়ে। এর আগে বেসামরিক নেতৃত্বাধীন সরকারের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন মিয়ন্ত সোয়ে।

৪টি বিষয়কে গুরুত্ব দিচ্ছে সেনাবাহিনী
সামরিক বাহিনী থেকে জারি করা এক বিবৃতিতে চারটি বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বলে বিবিসি মিয়ানমারের সংবাদদাতা জানাচ্ছেন। এগুলো হল:

১. নতুন করে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে এবং নিয়মানুযায়ী ভোটার তালিকা তদন্ত এবং পর্যালোচনা করা হবে;

২. কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সামরিক সরকার যুদ্ধ চালিয়ে যাবে এবং মহামারির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে বেগবান করা হবে;

৩. দেশজুড়ে যুদ্ধবিরতি প্রক্রিয়া বন্ধ করতে কাজ করে যাবে সেনাবাহিনী; এবং

৪. জরুরি অবস্থা শেষে একটি সাধারণ নির্বাচন আয়োজন করবে সেনাবাহিনী।

নতুন নির্বাচনের পর ক্ষমতা হস্তান্তর
মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী বলেছে যে, জরুরি অবস্থা শেষ হলে দেশটিতে নতুন করে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং বিজয়ী দলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে। সেনা অভ্যুত্থানের কয়েক ঘণ্টা পর এমন তথ্য জানানো হলো।

সামরিক বাহিনীর ফেসবুক পেইজে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা প্রকৃত বহু-দলীয় গণতন্ত্র চর্চা করবো… যেখানে পূর্ণ ভারসাম্য এবং নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করা হবে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পর এবং জরুরি অবস্থা শেষ হয়ে যাওয়ার পর ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে।

পার্লামেন্টের সামনের রাস্তা বন্ধ
মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে পার্লামেন্টের সামনের রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছে সেনাবাহিনী। বন্ধ রাস্তায় ব্যারিকেডের পাশাপাশি ভারী সামরিক যান ও অস্ত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে সেনা সদস্যদের।

সব ধরনের ব্যাংক সাময়িক বন্ধ
মিয়ানমারের ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন এক বিবৃতিতে দেশটির বর্তমান অবস্থার কথা তুলে ধরে জানানো হয়েছে যে, ইন্টারনেট সংযোগ দুর্বল থাকার কারণে ব্যাংকগুলোতে সোমবার সব ধরনের অর্থনৈতিক সেবা সাময়িকভাবে বন্ধ করা হচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয় যে, এর মধ্যে ব্যাংকগুলো বন্ধের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি নেবে এবং এরপরই কবে থেকে আবার তাদের সেবা চালু হবে সে বিষয়ে জানাবে।

মিয়ানমার ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের নির্দেশনার বরাত দিয়ে দেশটির কানবাওজা ব্যাংক তাদের ফেসবুক পেজে জানিয়েছে যে, সাময়িকভাবে তাদের ব্যাংকের শাখাগুলো কার্যক্রম বন্ধ রাখবে।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

Sharing is caring!