চাঁদপুরে মতলব উত্তরে সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ইজিবাইক চালক নূরে আলম। তার বাইকে ফেলে যাওয়া এক স্কুল শিক্ষকের দামি ল্যাপটপ ফিরিয়ে দিলেন তিনি।

শুধু তাই নয়, বিনিময়ে বখশিশ হিসেবে পুরস্কারও ফিরিয়ে দিলেন এবং শিক্ষকের কাছে সন্তানদের জন্য দোয়া চাইলেন এই ইজিবাইক চালক।
মতলব উত্তরের পাঠানবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালিমা নাজনীন রোববার (২৪ জানুয়ারি) পাশের নিশ্চিতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক একটি কর্মশালায় অংশ নেন। ওই দিন বিকেলে কর্মশালা শেষ করে নিজ গ্রাম দুর্গাপুরে ফিরেন সালিমা নাজনীন। তবে এ সময় ভুল করে তার সঙ্গে থাকা দামী সরকারি ল্যাপটপ ইজিবাইকে ফেলে যান।

অন্যদিকে যাত্রী নেমে যাবার পরপরই ইজিবাইকের চালক পেছনে তাকিয়ে লক্ষ্য করেন, বসার আসনে একটি কালোব্যাগ পড়ে আছে। কিন্তু ততক্ষণে সেই ব্যাগের মালিক হাওয়া।
কোনো উপায় না পেয়ে ইজিবাইকের চালক গত দুদিন ধরে খুঁজে বেড়ান কালোব্যাগের মালিককে। সোমবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে একজন নারীকে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে কি যেন খুঁজতে দেখেন। অবশেষে পেয়ে যান ইজিবাইকে ফেলে যাওয়া সেই কালোব্যাগের মালিককে।

প্রধান শিক্ষক সালিমা নাজনীন জানান, দুদিন ধরে এদিক সেদিক খুঁজে কোথাও হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ পাচ্ছিলাম না। তবে বিস্ময়কর ব্যাপার হলো, আমার ভুলে ফেলে যাওয়া ল্যাপটপ ফিরিয়ে দিলেন নূরে আলম নামে ইজিবাইক চালক।
নূরে আলম জানান, কেউ ভুল করলেও আমি ভুল করতে পারি না। তাই বিবেকের তাড়নায় গত দুদিন ধরে খুঁজে অবশেষে প্রকৃত মালিকের কাছে কালোব্যাগে থাকা ল্যাপটপ ফিরিয়ে দিলাম।
তিনি আরও জানান, আমাকে পুরস্কার হিসেবে বখশিশ দেওয়ার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু বিনয়ের সঙ্গে তা ফিরিয়ে দিয়েছি। ল্যাপটপের মালিক প্রধান শিক্ষককে বলেছি, আমার দুইটি মেয়ে আছে। তারা যেন আদর্শ মানুষ হতে পারে, তার জন্য দোয়া করবেন।

মতলব উত্তর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান, সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী এমন একজন নূরে আলম থেকে এখনো অনেক কিছু শেখার আছে। তাই প্রাথমিক শিক্ষা পরিবার থেকে তার প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা আরও বেড়ে গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মতলব উত্তরের নিশ্চিতপুর বাজারের পাশেই ইজিবাইক চালক নূরে আলমের বাড়ি।

Sharing is caring!