তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই, চুক্তি অনুযায়ী যথাসমযয়ে ভারত থেকে ভ্যাকসিন আসবে।

মন্ত্রী আজ রংপুর সার্কিট হাউস প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে এ কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে যে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছিল তা নিয়ে সেরাম ইনস্টিটিউট বিবৃতি দিয়েছে। গণমাধ্যমে বিষয়টি পরিষ্কার করেছে। একই সাথে ভারতের স্বাস্থ্যসচিব নিশ্চিত করেছেন যে, বাংলাদেশ চুক্তি অনুযায়ী যথাসময়ে করানোর ভ্যাকসিন পাবে। একই সাথে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বাংলাদেশে সময়মতো করোনার ভ্যাক্সিন পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের অবস্থান উপমহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে ভালো। ব্লুমবার্গের রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উপমহাদেশে বাংলাদেশ সবথেকে ভালো অবস্থায় রয়েছে।

করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে যারা গুজব ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে তারাই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের গুজব ছড়িয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, করোনা বাংলাদেশে সনাক্ত হওয়ার পর একটি মহল বলেছিল, মানুষ রাস্তায় পড়ে থাকবে, দুর্ভিক্ষ দেখা দিবে ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু আল্লাহর রহমতে বাংলাদেশের মানুষ ভালো আছে।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশের গণমাধ্যম যে পরিমাণ স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করে বিশ্বের অনেক দেশ বা উন্নত দেশে এমন স্বাধীনতা পায় না। এর বাইরেও যদি কেউ হয়রানির শিকার হয় আমার দৃষ্টিগোচর হলে আমি যথাযথ ব্যবস্থা নেই।’

এরপর মন্ত্রী বাংলাদেশ টেলিভিশনের রংপুর উপকেন্দ্র এবং বাংলাদেশ বেতার রংপুর কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কেন্দ্র দু’টির কার্যক্রম ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

এর আগে তথ্যমন্ত্রী দুপুরে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইউএসবাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে করে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে আসেন। সেখান থেকে গাড়িতে করে রংপুর সার্কিট হাউসে পৌঁছলে মন্ত্রীকে গার্ড অফ অনার প্রদান করা হয়।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ রংপুর পৌঁছলে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করে নেন জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ছাড়াও আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মধুসুদন দত্ত, মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শহিদুল্লাহ কাওছার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন মন্ডল মওলা, মহানগর সভাপতি সফিউর রহমান সাফি, সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল প্রমুখ।

Sharing is caring!