সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পুলিশকে জনগণের সেবক হতে হবে। পুলিশের প্রত্যেক সদস্যকে অসহায় ও বিপন্ন মানুষের পাশে বিশ্বস্ত বন্ধুর মতো দাঁড়াতে হবে।

রোববার (৩ জানুয়ারি) শিক্ষানবিশ পুলিশ সহকারী সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে রাজশাহীর সারদা পুলিশ একাডেমির অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন সরকার প্রধান।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে একাত্তরের ২৫ মার্চ রাজারবাগে পাকিস্তানি বাহিনীর হামলায় শহীদ পুলিশ সদস্যদের এবং মুক্তিযুদ্ধে এ বাহিনীর সদস্যদের ভূমিকা স্মরণ করেন। পাশাপাশি তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের সহিংসতা ও জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় যে সব পুলিশ সদস্য নিহত ও আহত হয়েছেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার তাদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে। পুলিশকে শক্তিশালী ও কার্যকর করতে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথাও তুলে ধরেন তিনি।

জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশের ভূমিকার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, পুলিশের জন্য সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারেনি। সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ দমনে গঠিত বিশেষায়িত ইউনিট কাজ করে যাচ্ছে

পুলিশের প্রত্যেক সদস্য সর্বোচ্চ দেশপ্রেম নিয়ে তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে এই বাহিনী বিশেষ অবদান রাখবেন।

Sharing is caring!