সম্প্রতি বড় ধরনের সাইবার হামলার শিকার হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো। আর এ হামলার জন্য চীনকে দায়ী করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এমন সময় চীনকে দায়ী করে বক্তব্য দিলেন, যখন তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওসহ মার্কিন গণমাধ্যমগুলো ওই হামলার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প শনিবার এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, “ভুয়া গণমাধ্যমগুলো সাম্প্রতিক সাইবার হামলাকে বড় করে তুলে ধরার ব্যাপক চেষ্টা করেছে। আমি এ ব্যাপারে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছি এবং পুরো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।”

এরপরই ট্রাম্প তার টুইটে আরও লেখেন, “মূলধারার গণমাধ্যমগুলো যাকে দায়ী করে বক্তব্য দিচ্ছে সে হচ্ছে রাশিয়া, রাশিয়া, রাশিয়া। কারণ, অর্থনৈতিক কারণে তারা যার নামটি মুখে আনতে ভয় পায় সেটি হচ্ছে চীন।”

যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানগুলোতে বড় ধরনের সাইবার হামলা সম্পর্কে নীরবতা অবলম্বনের জন্য ব্যাপকভাবে সমালোচিত হওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট অনেক দেরিতে হলেও এই প্রতিক্রিয়া জানালেন।

মার্কিন গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে- একটি বিদেশি সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় গত রোববার একটি হ্যাকার গোষ্ঠী যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাইবার হামলা চালিয়ে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে।

মার্কিন অর্থ এবং অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিভাগসহ দেশটির পরমাণু স্থাপনাগুলোতে গত কয়েক সপ্তাহে বহুবার সাইবার হামলা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

Sharing is caring!