বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও ভারতের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধী (বাপু) এর সার্ধশত জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ও বাপুর অহিংস মতবাদ ও শান্তির বাণী যুবসমাজ ও নতুন প্রজন্মসহ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে ভারত ও বাংলাদেশ দুই দেশের অংশগ্রহণে ‘বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী’ আয়োজন বিষয়ক এক প্রাথমিক সভা আজ বিকালে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি’র সভাপতিত্বে এ সভায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. বদরুল আরেফীন, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান, ভারতের মহাত্মা গান্ধী ডিজিটাল মিউজিয়ামের কিউরেটর বিরাদ রাজারাম ইয়াজনিক (Birad Rajaram YAJNIK), একই প্রতিষ্ঠানের প্রকাশনা বিভাগের প্রধান মিসেস তারানদীপ গুন্তি (Mrs. Tarandeep GUNTI), সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সাবিহা পারভীন, ভারতীয় হাইকমিশনের তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক প্রথম সচিব শাশ্বতী আরিয়াসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

সভায় বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী আয়োজন বিষয়ে প্রাথমিক পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন মহাত্মা গান্ধী ডিজিটাল মিউজিয়ামের কিউরেটর বিরাদ রাজারাম ইয়াজনিক।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী যৌথ ডিজিটাল প্রদর্শনী আয়োজন বিষয়ে বিস্তারিত পরিকল্পনা লিখিত প্রস্তাব আকারে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের জন্য ভারতীয় প্রতিনিধিদলকে অনুরোধ করেন এবং এ উদ্যোগ গ্রহণের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ও সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

জাতির পিতা সংক্রান্ত যে কোন আয়োজন ও বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়টি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি ট্রাস্টের এখতিয়ারভুক্ত বিধায় প্রতিমন্ত্রী এ বিষয়ে ট্রাস্টের অনুমোদন নেয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। সে মোতাবেক ভারতীয় প্রতিনিধিদল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি ট্রাস্টের সঙ্গে পরবর্তীতে এক সভায় মিলিত হবেন।

উল্লেখ্য, গত ১৮ অক্টোবর ২০২০ খ্রি. তারিখে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী সৌজন্য সাক্ষাৎকালে বঙ্গবন্ধু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী আয়োজন বিষয়ে প্রস্তাবনা প্রদান করেন।

Sharing is caring!