আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় চলমান সহিংসতায় এ পর্যন্ত ৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে ৫১ জন সাধারণ জনগণ এবং ১৮ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য। শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুহাম্মাদু বুহারি এক বিবৃতিতে এমনটাই জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি আন্দোলনকারীদের ঘরে ফিরে যেতে বলেছেন। খবর আল জাজিরার।

নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘যদি তারা ঘরে ফিরে না যায় তাহলে তিনি নিরাপত্তা বাহিনীকে সরাবেন না। কারণ, তিনি গুণ্ডাদের যা ইচ্ছা তাই করতে দিতে পারেন না। দেশকে অস্থিতিশীল করতে দিতে পারেন না।’

বুহারি আরও বলেছেন, ‘অনেক প্রাণহানি ঘটেছে। আর যেন না ঘটে। সরকার শান্তিপূর্ণ যে কোনো আন্দোলনের পাশে আছে। কিন্তু অরাজকতা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করার যে আন্দোলন সেটার পক্ষে নেই। দুষ্কৃতিকারীরা যা ইচ্ছা তাই করবে আর সরকার সেনাবাহিনীকে রাস্তা থেকে তুলে নিবে, এমনটা তো হতে পারে না। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১৮ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য বিক্ষোভকারীদের হাতে নিহত হয়েছে। ৫১ জন সাধারণ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। প্রাণহানি এখানেই বন্ধ হোক।’

তবে প্রেসিডেন্ট বুহারি তার বিবৃবিতে মঙ্গলবার রাতে আন্দোলনকারীরা যখন জাতীয় সঙ্গীত গাইছিলো তখন সেনাবাহিনীর সদস্যরা নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করলে ঘটনাস্থলেই ১২ জনের মৃত্যু হয় এ নিয়ে কিছু উল্লেখ করেননি। কিন্তু এই গুলিবর্ষণের ঘটনা বিবৃতিতে উল্লেখ না করায় আন্দোলনকারীরা হতাশ ও বিস্মিত হয়েছেন।

আন্দোলনকারীদের দাবি, সরকার ফলপ্রসূ কোনো সিদ্ধান্ত না নিলে এই আন্দোলন চলতেই থাকবে। সামনের দিনগুলোতে হয়তো আরও বড় আন্দোলন দানা বেধে উঠবে।

Sharing is caring!