ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নেতা মাস্টারদা সূর্য সেনের ৮৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৩৪ সালের আজকের এই দিনে আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অপরাধে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয় তার। সূর্য সেনের এই আত্মত্যাগ ব্রিটিশ শাসনের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছিল।

বিপ্লবী সূর্য সেন ১৮৯৪ সালের ২২ মার্চ চট্টগ্রামের রাউজান থানার নোয়াপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯১৬ সালে বহররমপুর কৃৃষ্ণনাথ কলেজের ছাত্র থাকাকালে সরাসরি রাজনীতিতে যুক্ত হন। বিপ্লবীদের গোপন ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত কলেজটির অধ্যাপক সতীশচন্দ্র চক্রবর্তীর সান্নিধ্যে আসেন। যুক্ত হন বিপ্লবী যুগান্তর দলে।

সূর্য সেন ১৯১৮ সালে শিক্ষাজীবন শেষ করে চট্টগ্রামে এসে গোপনে বিপ্লবী দলে যোগ দেন। ১৯২০ সালে অসহযোগ আন্দোলন শুরু হলে অনেক বিপ্লবীর মতো তিনিও যোগ দেন। মহাত্মা গান্ধী ১৯২২ সালে অসহযোগ আন্দোলন প্রত্যাহার করলে বিপ্লবী দলগুলো ফের সক্রিয় হয়ে ওঠে। ইংরেজবিরোধী আন্দোলনের অংশ হিসেবে চট্টগ্রামের অস্ত্রাগার লুণ্ঠন, জালালাবাদে ইংরেজদের সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধ ও ইউরোপীয় ক্লাব আক্রমণে নেতৃত্ব দিয়ে বিপ্লবী উপাধি লাভ করেন সূর্য সেন।

Sharing is caring!