এইচ.এম. আবেদুজ্জামান জিহাদঃ আজ ০৬ জানুয়ারি বুধবার জনগণের রায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ধারাবাহিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণের এক যুগ পূর্তি হলো। এই শুভক্ষণ উপলক্ষে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ তাদের নিজ কার্যালয় ১৯,বঙ্গবন্ধু এভিনিউ তে বাদ আসর দোয়া ও মিলাদ মাহফিল এর আয়োজন করে।
উক্ত অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ এর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবু আহমেদ মন্নাফী এবং প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব হুমায়ুন কবির। এছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর দক্ষিণ আওয়ামীলীগ এর সহ-সভাপতি ডাঃ দিলীপ কুমার রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদ খান কামাল,মোঃ মিরাজ হোসেন, মহিউদ্দিন মহি, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আশরাফ তালুকদার, গোলাম সরোয়ার কবির, দপ্তর সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম রিয়াজ সহ মহানগরের সম্পাদকমন্ডলীর সদস্যবৃন্দ এবং সদস্যবৃন্দ।এছাড়াও বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড থেকে আগত নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, “দেশ উন্নয়নের ধাপে প্রতিনিয়ত এগিয়ে যাচ্ছে।দেশ উন্নত দেশে পরিনত হয়েছে। এক যুগ এর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ কে বিশ্ববাসীর কাছে এক মডেল হিসেবে পরিনত করেছে দেশরত্ন শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতু আজ দৃশ্যমান,এক্সপ্রেস ওয়ে হয়েছে,দেশের হাইওয়েগুলোর এত উন্নতি সব সম্ভব হয়েছে তার একমাত্র কারণ হচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনা। ডিজিটাল বাংলাদেশ এর পিছনে এ সরকার এর ভূমিকা অতুলনীয়। আর এত সব উন্নয়ন আর অগ্রগতি এর কারণেই জনগণ বারবার ভোট দিয়ে আওয়ামীলীগ সরকারকে ক্ষমতায় বসিয়েছে।” প্রধান বক্তা এর বক্তব্যে আলহাজ্ব হুমায়ুন কবির বলেন “২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্ববাসীর কাছে অবাক করে দেওয়া এক দেশ। সে লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে দেশনেত্রী। আজ দেশের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন এর জোয়ার বইছে। কৃষি,চিকিৎসা সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে এখন দশম শ্রেনী পর্যন্ত বিনামূল্যে বই বিতরন করছে আওয়ামীলীগ সরকার। বঙ্গবন্ধু এর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্য নিয়ে দেশকে সুষ্ঠু এবং সুন্দরভাবে পরিচালনা করছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনা।”
মিলাদ মাহফিলে বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদদের জন্য দোয়া করা হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এর আয়ুকাল বৃদ্ধি এর জন্য দোয়া করা হয়। দোয়া ও মিলাদ মাহফিল শেষে নেতাকর্মীদের মাঝে তোবারক বিতরন করা হয়।

Sharing is caring!