এ নিয়ে শিল্পী বলেন, ‘পরিবারের একজনের বিয়ে ছিল। স্বল্প পরিসরে আয়োজন করা হয়, এসময় পরিবারের সবাই একত্রিত হয়েছিলেন। পরে দেখা যায়, আমার পরিবার, আমার ভাইয়ের পরিবার, আমার শ্বশুর–শাশুড়ি, ভাশুরদের পরিবারের প্রায় সবাই করোনায় আক্রান্ত হন। আমাদের পরিবারের ওপর দিয়ে একটা ঝড় যাচ্ছে।’

এদিকে শিল্পী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অভিনেত্রী বলেন, ‘প্রথমদিকে বাচ্চাদের কথা চিন্তা করে হাসপাতালে ভর্তি হইনি। আমার টানা ১৫ দিন জ্বর ছিল। গত ৯ ডিসেম্বর থেকে ৪ দিন কথা বলাই বন্ধ হয়ে যায়। একসময় চিকিৎসকেরাও ঘাবড়ে গিয়েছিলেন। সম্প্রতি বাসায় ফিরেছি। তবে এখনো শারীরিক দুর্বলতা কাটেনি।’

উল্লেখ্য, ২০০০ সালে চলচ্চিত্র থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন শিল্পী। তারপর থেকে দীর্ঘদিন বিএফডিসি বা চলচ্চিত্রের কোনো অনুষ্ঠানেও দেখা যায়নি তাকে। তবে গত দুই বছর ধরে চলচ্চিত্র শিল্পীদের আর্থিক সহায়তাসহ নানাভাবে পাশে দাঁড়াতে দেখা গেছে এই অভিনেত্রীকে।

Sharing is caring!