আপনারা নির্দ্বিধায় আপনাদের অনুদান রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে দেবেন মন্তব্য করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ও ঢাকা সিটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, এ অর্থ সম্পূর্ণরূপেই আর্তমানবতার সেবায় ব্যয় হয়।

রাজধানীর সিরডাপ আন্তর্জাতিক কনফারেন্স সেন্টারে বুধবার (২ ডিসেম্বর) দুপুরে ঢাকা সিটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের বার্ষিক সাধারণ সভার সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, একজন স্বেচ্ছাসেবীর বয়স কোনোদিন বাড়ে না। স্বেচ্ছাসেবক কখনও বৃদ্ধ হয় না। কারণ তার মনের উদ্যম আজীবন তরুণ থাকে। আমরা আর্তমানবতার ব্রত নিয়ে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্য হয়েছি। আমরা আজীবন জনকল্যাণে আর্তমানবতার সেবায় কাজ করে যাব। সেখানে বয়স কোনো বাধা নয়, বিবেচনার বিষয়ও নয়। সুতরাং যেদিন থেকে আমরা রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য হবো, সেদিন থেকেই আমরা যেন আর্তমানবতার সেবায় আমাদের ইচ্ছা ও চেতনা সদাজাগ্রত থাকে।

তিনি আরও বলেন, আমরা আমাদের এ ঢাকা সিটি ইউনিটকে শুধু বাংলাদেশের মধ্যে নয়, সারা বিশ্বের মধ্যে উচ্চ মাত্রায় আসীন করতে চাই। আমরা আমাদের কার্যক্রম বাড়াতে চাই। আমি আজকে সভা থেকে ঢাকার সবার কাছে আবেদন করতে চাই আপনাদের অনুদানের উচ্চতম জায়গা হচ্ছে রেড ক্রিসেন্ট। রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি যে অর্থ পায়, সেটা বিনষ্ট হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির আজীবন সদস্য সংখ্যা নিয়ে কিছুটা দুঃখ প্রকাশ করে ব্যারিস্টার তাপস বলেন, দুই কোটি ১০ লাখ জনবসতির এ ঢাকা শহর। সেখানে ৪৯ বছরের রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য দুই হাজার ২০০। এটা শুধু অপ্রতুল নয়, নিতান্তই অগ্রহণযোগ্য। আমি যখন রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ঢাকা ইউনিটের দায়িত্ব পেলাম, আমি নিজে আজীবন সদস্য হয়েছি। আমার স্ত্রীকে আজীবন সদস্য করেছি, আমার ১৯ বছরের পূর্ণবয়স্ক সন্তানকেও রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য করেছি। ছোট ছেলে আগামী বছর প্রাপ্ত বয়স্ক হলে সেও রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি আজীবন সদস্য হবে। আমরা আগামী বছরের মধ্যে আমাদের রেড ক্রিসেন্টে সোসাইটির ৫ হাজার আজীবন সদস্য করতে চাই।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য মো. মাসুদুর রহমান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, শেখ সেলিম আহমেদ, আখতারুজ্জামান প্রমুখ।

Sharing is caring!