ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের এক বছরের পথচলায় মানবিকতা ও সাংগঠনিকভাবে এগিয়ে যাওয়ার একটি সাফল্যময় বছর অতিক্রম করেছে ইউনিট সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির। এরই মাঝে সাংগঠনিকভাবে দুর্যোগময় সময় অতিক্রম করে সাবেক ছাত্রনেতাদের প্রাধান্য দিয়ে একটি শক্তিশালী পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করেছে।

এক বছরের পথচলায় বৈশ্বিক মহামারী করোনাকালে মানবিকতার অনন্য দৃষ্টান্ত রেখেছে নগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ। করোনার শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ইউনিটটির সাধারণ সম্পাদক ও লালবাগের কৃতিসন্তান এবং সাবেক কাউন্সিলর হুমায়ুন কবির ধারাবাহিকভাবে মানবতার পথে, মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। অন্যদিকে, জীবনের ঝুঁকি নিয়েই মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন ইউনিটের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বলেন, আমরা একটি কঠিন সময় অতিক্রম করে, সাংগঠনিকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। পরিচ্ছন্ন একটি কমিটি করার চেষ্টা করেছি। শীতে করোনার প্রভাব বাড়তে পারে, সে বিষয়েও আমাদের প্রস্তুতি আছে, মানুষকে সচেতনতার পাশাপাশি অসহায়দের পাশে নগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ থাকবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আমরা তৃণমূলের রাজনীতিতে যারা শ্রম ও সক্রিয় তাদের মূল্যায়নের চেষ্টা করেছি। ত্যাগীদের অগ্রাধিকার দিয়ে সাবেক ছাত্রলীগের নেতা ও আন্দোলন সংগ্রামের কর্মীদের নিয়ে কমিটি করা হয়েছে। রাষ্ট্রের যেকোনো দুর্যোগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ মাঠে থেকে মানুষের জন্য কাজ করে যাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবে।

এদিকে, সম্প্রতি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফীকে সভাপতি ও হুমায়ুন কবিরকে সাধারণ সম্পাদক কোরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

১৬ সদস্যের কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে আছেন ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, শাহে আলম মুরাদ ও সালাউদ্দিন বাদল।

এছাড়া, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য করা হয়েছে ১৪ জনকে। গেল বছর ৩০শে নভেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণের সম্মেলনের প্রায় এক বছর পর ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ঘোষণা এলো।

Sharing is caring!