মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষায় যুক্তরাষ্ট্রবাসী। যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হওয়ার দ্বারপ্রান্তে ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন। হোয়াইট হাউসের মসনদে কে বসতে যাচ্ছেন- তা এখনও নির্ধারিত না হলেও ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। পাল্লা ভারি ডেমোক্র্যাট জো বাইডেনেরই।

পেনসিলভেনিয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পকে পেছনে ফেলে জয়ের পথে আরও এক ধাপ এগিয়েছেন বাইডেন। নেভাদা ও জর্জিয়ায়ও লিড নিয়েছেন তিনি।

জয়ের দ্বারপ্রান্তে এসে তাই আরও একবার মার্কিনীদের উদ্দেশের বক্তব্য রাখলেন বাইডেন।

জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে, সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়েই জয়ের বার্তা দিলেন তিনি। আর ভোট গণণা শেষ না হওয়া পর্যন্ত সমর্থকদের ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ পরিবর্তন চায়, যার প্রতিফলন ঘটেছে এবার ভোটে। প্রতিযোগিতায় শুধু বিজয়ী নয়, ৩শ’রও বেশি ইলেক্টরাল ভোট অর্জনের আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

করোনা মহামারি, অর্থনৈতিক সংকটসহ নানা কারনে এবারের ভোটের লড়াই কঠিন হয়েছে উল্লেখ করে গণনা নিয়ে সমর্থকদের ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানান। প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করলেও, যত চেষ্টা করুক কেউ ভোট গণনা ঠেকাতে পারবে না বলেও হুশিয়ার করেন।

সর্বশেষ ফলাফলে পেনসিলভেনিয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্পের চেয়ে এখন ২৭ হাজার ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে বাইডেন। নেভাদায়ও লিড নিয়েছেন তিনি। তবে জর্জিয়ায় শুরু হয়েছে পুনঃভোটগণনা।

অন্যদিকে প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাম্প এখনই জয়-পরাজয় মেনে নিতে রাজি নন। বাইডেন জয়ের ঘোষণা দিলে, পরিস্থিতি নিয়ে হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

ইতিমধ্যে গণনা থামাতে ট্রাম্পের প্রচার শিবিরের মামলায় সাড়া দেয়নি আদালত। তবে বাইডেনকে উদ্দেশ্য করে সতর্কবার্তা দিয়েছেন ট্রাম্প। বিভিন্ন শহরে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ অব্যাহত।

যুক্তরাষ্ট্রে ভোট গ্রহণের তিন দিন পার হলেও বিপুল সংখ্যক পোস্টাল ভোট গণণার জেরে ঝুলে আছে চার অঙ্গরাজ্যের ফলাফল। ম্যাজিক ফিগার ২৭০ ইলেকটোরাল ভোট এখনও কেউ অর্জন করতে পারেনি।

এ অবস্থায় ভোট গণনা নিয়ে দেশজুড়ে পাল্টাপাল্টি দু’পক্ষেরই বিক্ষোভ-সমাবেশ চলছে।

Sharing is caring!