বদলে যাওয়া বাংলাদেশের অগ্রনায়ক শেখ হাসিনার উন্নয়নে সেবকের ভূমিকায় কাজ করবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিটি নেতাকর্মী এমনটাই জানিয়েছেন ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ। তিনি বলেন, সংগঠনকে গতিশীল ও শক্তিশালী করতে ইতিমধ্যেই আমরা কাজ শুরু করেছি। করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের নেতাকর্মীরা ব্যাপক কাজ করেছে। মানুষকে সচেতনতার পাশাপাশি স্বাস্থ্য সুরক্ষায় প্রয়োজনীয় উপকরণ বিতরণ করেছি আমরা। এ কাজ এখনো অব্যাহত আছে, যতোদিন করোনা সংক্রমণ থাকবে ততোদিন মানুষের পাশে থাকবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

এদিকে, গত বছরের ১৬ নভেম্বর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি গঠণ হলেও এখন পর্যন্ত কার্যকর কোনো পদক্ষেপ দেখাতে না পারলেও সংগঠনকে শক্তিশালী করার কৌশলগত কার্যপ্রণালী তৈরী করেছেন বলে জানিয়েছেন তারিক সাঈদ।

সম্প্রতি কয়েকটি থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাদের বিতর্কীত কর্মকান্ডে সাংগঠনিক দূর্বলতার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে বলে অভিমত অনেকের। এবিষয়ে নগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ বলেন, সাংগঠনিকভাবে আমাদের দূর্বলতার কোনো কারণ নেই। কেন্দ্রীয় নিদের্শনা মোতাবেক আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমার সভাপতি ও আমি ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিটি বিষয়ে নজর রাখছি। করোনার কারণে মানবতার কাজে সেবার ব্রত নিয়ে আমরা মানুষের পাশে দাঁড়ানোটাকে গুরুত্ব দিয়েছি। এরমাঝে দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটার সাথে সাথেই আমার সভাপতি ও আমি দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা নিয়েছি।

নগর কমিটির যাত্রা প্রায় এক বছর হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনো করতে পরেনি। কয়েকটি থানার নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলেও নতুন কোনো কমিটি উপহার দিতে পারেনি তৃণমূল নেতাকর্মীদের নগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ। এ বিষয়ে তারিক সাঈদ বলেন, আমরা যাচাই-বাছাই করছি। বিশেষ কথা হচ্ছে করোনার কারণে কমিটিকে গুরুত্ব না দিয়ে মানুষের পাশে থাকাকেই গুরুত্ব দিয়েছি। কমিটিতে কেমন নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবশ্যই ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হবে। পরিচ্ছন্ন ও সাংগঠনিক নেতৃত্ব নির্বাচনে আমরা কাজ করছি।

আপনাদের উপর বিভিন্ন থানা নেতাদের আস্থারসংকট লক্ষ্য করা যাচ্ছে, এবিষয়ে তারিক সাঈদ বলেন, আস্থার সংকট নয়, হয়তো কেউ কাউকে পছন্দ বা ভালো নাই লাগতে পারে, তবে রাজনীতি করতে হলে অবশ্যই নেতৃত্ব মেনেই করতে হবে।

খিলগাঁও থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অব্যাহতি প্রাপ্ত্য সভাপতি তৌহিদুল হাসান টফিকে কেন সাময়িকভাবে বিরত রাখার বিষয়ে তারিক সাঈদ বলেন, কোনো অন্যায় বা অপরাধকে স্বেচ্ছাসেবক লীগ প্রশ্রয় দেয় না। যেহেতু মামলা হয়েছে তাই সাময়িকভাবে ব্যবস্থা নিয়েছি। এ থেকে তৃণমূলে একটি বার্তা পরিস্কার হয়েছে অপরাধীদের স্থান নগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কোনো কমিটিতে হবে না।

মহানগর কমিটি পূর্ণাঙ্গ ও বিভিন্ন থানা কমিটি গুলো গঠনে কেমন সময় লাগতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের প্রস্তুতি আছে দ্রুত সময়ের ভেতর অনেক কিছুই দৃশ্যমান হবে।

Sharing is caring!