নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের মামলার তিন আসামি ইরফান সেলিম, দীপু এবং জাহিদের ৭ দিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মামলার অন্যতম আসামি হাজি সেলিমের প্রটোকল কর্মকর্তা এবি সিদ্দিক দিপুকে ৩ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

আজ বিকেলে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধানমন্ডি থানার ওসি ইকরাম আলী। তিনি জানান, ‘ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে। আদালতের কাছে তাদের প্রত্যেককে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ।’

এদিকে মামলার অন্যতম আসামি হাজি সেলিমের প্রটোকল কর্মকর্তা এবি সিদ্দিক দিপুকে টাঙ্গাঈল থেকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাকে ৩ দিনের রিমান্ড নেয়া হয়।

অপরদিকে, ইরফান সেলিমকে কারাগারে পাঠিয়ে রাখা হয়েছে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে। একইসঙ্গে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ায় কাউন্সিলর পদ হারাচ্ছেন সেলিমপুত্র।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ অক্টোবর রাতে ঢাকা-৭ আসনের এমপি হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর করা হয়। রাতে এ ঘটনায় জিডি হলেও ২৬ অক্টোবর ভোরে হাজী সেলিমের ছেলেসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ওয়াসিফ।

পরে গ্রেফতার করা হয় মামলার প্রধান আসামি হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমকে। সঙ্গে গাড়ির চালক মিজানকেও আটক করে র‌্যাব।

Sharing is caring!