স্প্যানিশ লা লিগার নতুন মৌসুমের প্রথম ম্যাচেই বড় জয় দিয়ে দুর্দান্ত শুরু করেছে বার্সেলোনা। ভিয়ারিয়ালকে ৪-০ গোলে হারিয়েছে রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা।

রোববার রাতে ঘরের মাঠে ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে এমন জয়ে জোড়া গোল করেছেন আনসু ফাতি। একটি গোল করেছেন লিওনেল মেসি। অপর গোলটি এসেছে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের পা থেকে। চারটি গোলই হয়েছে প্রথমার্ধে, দ্বিতীয়ার্ধে কোনো গোল হয়নি।

ম্যাচের ১৫ মিনিটের মাথায় গোল করে কাতালান জায়ান্টদের এগিয়ে দেন ফাতি। কোম্যান যুগে নিজের প্রথম গোলটি তিনি করেছেন জর্দি আলবার দুর্দান্ত এক পাস থেকে। এর ৪ মিনিট পর অর্থাৎ ম্যাচের ১৯ মিনিটে পাল্টা আক্রমণ থেকে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন ফাতি। তাকে এই গোলটি করতে সহায়তা করেন ফিলিপে কুতিনহো। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে বল নিয়ে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ফাঁকায় থাকা ফাতির কাছে বল পৌঁছে দেন আর তা নিচু শটে লক্ষ্যে পৌঁছে দেন তরুণ এই ফরোয়ার্ড।

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে চলতি মৌসুমে নিজের প্রথম গোলের দেখা পান লিওনেল মেসি। অবশ্য তার গোলটি এসেছে পেনাল্টি থেকে। এ সময় বক্সের মধ্যে ফাতিকে ফাউল করেন ভিয়ারিয়ালের মারিও গাসপার। অবশ্য মেসির নেওয়া পেনাল্টি কিক প্রায় ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন গোলরক্ষক সার্জিও আসেনজো। তার হাতে লেগেও বল জালে জড়ায়।

প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে আসে চতুর্থ গোলটি। এ সময় মেসির ক্রস ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দেন পাউ তোরেস। তাতে ৪-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় কাতালানরা। ফলে প্রথমার্ধেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ভিয়ারিয়াল। হতাশা নেমে আসে দলটিতে।

বিরতির পর ফিরে আর কোনো গোলের দেখা পায়নি বার্সেলোনা। তবে ম্যাচে ৮৬ মিনিটে ডি ইয়ংয়ের কাছ থেকে বল পেয়ে দারুণ এক কোণাকোণি শট নিয়েছিলেন বদলি খেলোয়াড় ফ্রান্সিস্কো ত্রিনকাও। তবে তা ঠেকিয়ে দেন ভিয়ারিয়াল গোলরক্ষক আসেনিও।

ফিরতি বল ভিয়ারিয়ালের এক খেলোয়াড় পা ঘুরে পেয়ে যান মেসি। দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে জোরালো এক শট নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এবারও দক্ষতার সঙ্গে তা ঠেকিয়ে দেন ভিয়ারিয়াল গোলরক্ষক। ৮৯তম মিনিটে ভিয়ারিয়ালের কাসেফুসো কুবোর দূরপাল্লার শট ঠেকিয়ে দেন বার্সা গোলরক্ষক নেতো।

Sharing is caring!