৪ হাজার পয়েন্ট ছাড়াল সূচক

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক বেড়ে আবার চার হাজার পয়েন্টের ঘর অতিক্রম করেছে। সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস মঙ্গলবার ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ৭ দশমিক ১৫ পয়েন্ট বা দশমিক ১৮ শতাংশ বেড়ে ৪ হাজার ১ দশমিক ৮১ পয়েন্ট হয়েছে। এর আগে গত ৩১ মে এ সূচক ৪ হাজার ৬০ পয়েন্টে ছিল। এরপর তা চার হাজারের নিচে নেমে যায়।

বরাবরের মতো আজও লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। অবশ্য ডিএসইতে যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে তার থেকে কম। ফলে সূচকের কিছুটা উত্থান হয়েছে।

পুরাতন মূল্য সূচকের পাশাপাশি বেড়েছে ডিএসইর অপর দুই সূচক। এর মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৩৪৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই শরিয়াহ ১ পয়েন্ট কমে ৯২৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

ডিএসইতে লেনদেন অংশ নেয়া ৪৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩৬টির। আর ২২৯টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৩৮ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ১৫০ কোটি ৬ লাখ টাকা। এ হিসেবে আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন কমেছে ১২ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

টাকার অংকে ডিএসইতে সবথেকে বেশি লেনদেন হয়েছে বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের শেয়ার। কোম্পানিটির ১২ কোটি ৭৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ৮ কোটি ৭৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ৭ কোটি ৯৫ লাখ টাকার লেনদেনের মাধ্যমে এর পরের স্থানে রয়েছে এক্সিম ব্যাংক।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষে থাকা ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে-ওরিয়ন ফার্মা, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ওয়াটা কেমিক্যাল, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিটিক্যালস এবং ওরিয়ন ইনফিউশন।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই কমেছে ২৬ পয়েন্ট। লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ১২০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ২৭টির, কমেছে ১৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৭৯টির।

Sharing is caring!