আনলিমিটেড নিউজ ডেস্কঃ এক সময়ে সলমান খান আর ক্যাটরিনা কাইফের প্রেমের গুঞ্জন ছিল টিনসেল টাউনের বহু চর্চিত বিষয়। কিন্তু জানেন কি, ওঁদের মধ্যে কিছু অশান্তিও কম হয়নি! এমনও হয়েছে, সালমান রাগের চোটে ক্যাটের জিনিসপত্র রাস্তায় ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন। নিজের বাড়ি থেকে বার করে দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে অবশ্য ক্যাটরিনা নিজের ভুল বুঝতে পারেন। ক্যাটরিনা সালমানের সাহায্যের হাত পাওয়ার আগে ছিলেন ইন্ডাস্ট্রির স্ট্রাগলিং নায়িকা। বলিউডে পরিচিতি পান ক্যাটরিনা সালমানের নায়িকা হওয়ার পরেই।

ইন্ডাস্ট্রিতে ক্যাটরিনার গডফাদার ছিলেন সালমান। সালমান নিজের বৃত্তের বহু পরিচালক, প্রযোজকের সঙ্গে ক্যাটের পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন, ক্যাটরিনা ধীরে ধীরে ইন্ডাস্ট্রিতে পরিচিতি পান। পরবর্তীতে সালমান ছাড়াও অন্য নায়কের সঙ্গে অভিনয়ের সুযোগ আসতে থাকে। সেখানেই বিপত্তি দেখা দেয় । ক্যাটের বিপরীতে জন আব্রাহাম ছিলেন ‘নিউইয়র্ক’ ছবিতে এই সময় থেকেই গুঞ্জন শোনা যেতে থাকে ক্যাট আর জনের সম্পর্ক নিয়ে। যদিও ক্যাটরিনা সালমান বা জন, কারও সঙ্গেই নিজের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি। কিন্তু তাঁর একটি মোবাইল ফোনের বিল সালমানের হাতে পড়তেই সমস্যা জটিল হয়।

দেখা যায়, সেই নম্বর থেকে জনের নম্বরে প্রচুর ফোনকল এবং মেসেজ করা হয়েছে। সেইসঙ্গে জনও উত্তরে ফোন করেছেন।পাঠিয়েছেন মেসেজ। এই ঘটনাকে সালমান ভাল ভাবে নেননি। পজেসিভ বলে তাঁর বদনাম ছিল বরাবরই।ক্যাটরিনা এবং জন দু’জনেই সংবাদমাধ্যমের সামনে তাঁদের যাবতীয় ফোনকল ও মেসেজকে ‘কেজো’ বলে বর্ণনা করেছিলেন। কিন্তু এই দাবিতে সালমানের কাছে চিঁড়ে ভেজেনি।

তখন সালমানের ‘গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে’-ই থাকতেন ক্যাটরিনা। তখন তাঁর হিন্দি উচ্চারণ থেকে ছবি বাছাইয়ের মাপকাঠি, সব ঠিক করে দিতেন সালমান, ক্যাটরিনাকে তিনি নিজের জীবনের অংশ বলেই মনে করতেন। সেখানে ভাইজান মেনে নিতে পারেননি ক্যাটের হৃদয়ে অন্য পুরুষের আগমনকে। এমনও শোনা যায় যে , এই ঘটনার জেরে সালমান ক্যাটরিনাকে শুধু বাসা থেকেই বার করেই দেননি তাঁর জিনিসপত্রও ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন। ‘নিউইয়র্ক’ ছবির প্রচারে ক্যাট তখন ব্যস্ত ছিলেন। তাঁকে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাও করা হয়েছিল।

সালমানের রোষ থেকে বাঁচতে তিনি সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, জন আব্রাহামের সঙ্গে তাঁর কাজের বাইরে কোনও সম্পর্ক নেই। এখনও সালমানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক আছে এ-ও স্বীকার করেছিলেন। ক্যাটরিনা জানান তাঁর জিনিসপত্রও সালমনের কাছেই আছে। ক্যাটরিনা অস্বীকার করেন যে সালমান তাঁর জিনিস ছুড়ে বাড়ির বাইরে ফেলে দেন। সালমান-ক্যাটরিনার সম্পর্ক এখান থেকেই ভাঙন শুরু। আর প্রলেপ লাগেনি সেই ভাঙনে। তা ছাড়া জন আব্রাহামের সঙ্গে সালমানের সম্পর্ক ভাল ছিল না। তিনি মানতে পারেননি তাঁর সঙ্গে নিজের প্রেমিকার ঘনিষ্ঠতা ।

ঐশ্বর্যের পরে ক্যাটরিনার সঙ্গেই সালমানের সিরিয়াস সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। সেখানে প্রেয়সীর তরফে এই মানসিক ধাক্কা মেনে নিতে প্রস্তুত ছিলেন না সালমান।

Sharing is caring!