আনলিমিটেড নিউজ, বিশেষঃ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩নং ওয়ার্ড, কাউন্সিলর মাকসুদ হোসেন মহসিন। বিশ্ব যখন থমকে দাঁড়িয়েছে, জনবহুল বাংলাদেশে যখন প্রতিনিয়ত মৃত্যুর মিছিল ভারী হচ্ছে, আর এই সংকটময় মুহূর্তে সরকার মানুষকে নিরাপদে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়ে, ওয়ার্ড ভিত্তিক খাদ্য সহায়তা জোরদার করছে। জেলা প্রশাসক, সিটি কর্পোরেশন ও স্থানীয় সাংসদের সহায়তার পরও অসহায়, সাধারণ হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে একটি বারের জন্যও খাবার পৌঁছায়নি। দক্ষিণ সিটির ৩নং ওয়ার্ড, একটি জনবহুল সীমানা। সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে ত্রাণ কার্যক্রমের আওত্তায় নিয়ে আসার লক্ষে ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মাধ্যমে তালিকা তৈরী করা হয়েছে। কয়েকটি মন্ত্রণালয়ও এ ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে। অনুসন্ধান বলছে, যে পরিমান ত্রাণ পেয়েছে কাউন্সিলরা একবার করে দিলে প্রায় প্রতিটি পরিবারই পাওয়ার কথা। সেক্ষেত্রে অনিয়মটা হচ্ছে কাউন্সিলর যাদের দিয়ে তালিকা করেন, তারাই কাউন্সিলরকে জনগণের কাছে অপরাধি করছে, চূড়ান্তভাবে কোনো দল বা সরকারের ইমেজ প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে! ৩নং ওয়ার্ড ঘুরে জানা যায়, কাউন্সিলর মাকসুদ হোসেন মহসিন একটু রাগী, সাধারণ মানুষের সাথে তার দূরত্ব অনেকটাই। সম্প্রতি দুটি ঘটনাবহুল অভিযোগ তাকে প্রশ্নের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। ১- তিনি ত্রাণ নিতে আসা এক মহিলাকে আঘাত করেছেন, পরবর্তীতে এ ঘটনা প্রশাসনীক পর্যন্ত গড়ায়। ২- ত্রাণ মজুদ এর অভিযোগে ভ্রামমাণ আদালতের মুখোমুখি হতে হয় মাকসুদ হোসেন মহসিনকে। এমন অভিযোগগুলো একব্যক্তির বিরুদ্ধে হলেও খুবদ্ধ স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এই কাউন্সিল মাকসুদ হোসেন মহসিন কাউকে পরোয়া করেন না বলে অভিযোগ করে একজন বলেন শুধু রাজনীতি করি বলেই তিনি ডাকলে না পারতে তার কাছে যেতে হয় বা যাই। ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী শাহ আলম ও সাধারন সম্পাদক আমিনুল ইসলাম মিঠু ব্যক্তিগতভাবে কোন সহায়তা করেননি বলে অভিযোগ থাকলেও স্থানীয় সাংসদ থেকে প্রাপ্ত ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন। ভূঁইয়া পাড়ার জনগণের ত্রাণ না পাওয়ার অভিযোগ ব্যাপক।

ওয়ার্ডটির পরিচিতিঃ
ঢাকা সিটি কর্পোরেশন দক্ষিণ এর ৩ নম্বর ওয়ার্ডটি আগে ২৬ নম্বর ওয়ার্ড নামে পরিচিত ছিল। মেরাদিয়া এলাকা নিয়ে এই ওয়ার্ডটি গঠিত। এই ওয়ার্ডের একদিকে রয়েছে খিলগাঁও এলাকা এবং অন্যদিকে রয়েছে বনশ্রী এলাকা।

এখানে নিম্নমধ্যবিত্ত মানুষের বাস। রাস্তাঘাট সহ অন্যান্য নাগরিক সুবিধাও এখানে তেমন নেই। এই ওয়ার্ডের অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছে প্রায় আড়াশ বছরের প্রাচীন মেরাদিয়া হাট। প্রতি বুধবারে এখনো হাটের কারণে মেরাদিয়ায় আসে বহু মানুষ। তবে করোনা পরিস্থিতিতে হাটটি বন্ধ রয়েছে।

Sharing is caring!