আন্তর্জাতিক এই মহাদূর্যোগে সকল আনন্দই যেন বিষাদে রূপ নিয়েছে। এবারের বাংলা নববর্ষেও সুনসান নিরবতা। চারদিকে নেই কোন শব্দ। নেউ বেঁফু বাঁশির আওয়াজ, নেই ডাকঢোলের শব্দ, নেই ঘুঙরের রিনঝিন। অদৃশ্য নভেল করোনা ভাইরাস(কোভিড-১৯) যেন সব আনন্দ কেড়ে নিয়েছে। এই ভয়ে আজ ঘর বন্দী কোটি কোটি মানুষ। গত বছরের(২০১৯) ডিসেম্বরে চীনে উৎপত্তি এই ভাইরাসে ঝাঁকুনি দিয়েছে গোটা দুনিয়ায়।
এই ভাইরাসের আক্রমণ থেকে রক্ষা পায়নি বিশ্বের ক্ষমতাধর থেকে শুরু দিনমজুর, নারী,শিশু, আবাল বৃদ্ধা কেউই রক্ষা পায়নি। আক্রান্ত হয়েছেন ক্ষমতাধর ব্রিটেনের রাণী, বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী, আমেরিকার প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা, ইরানের মন্ত্রী, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, স্পেনের প্রিন্সেস, ফ্রান্সের মন্ত্রীও। এই মহামারী ভাইরাসে বিশ্ব আজ নতজানু। এই ভাইরাসের ফলে বিপর্যস্ত বিশ্বের স্বাস্থ্যখাত থেকে শুরু করে ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতির সব খাত। সবকিছুর চাকাই আজ বন্ধ। যেন স্টার্টিং গিয়ারে জ্যাম লেগে স্থবির হয়ে আছে সবকিছু।
কিন্তু, তারপরও বসে নেই বিশ্ববাসী। এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে ৮০০ কোটি মানুষ। এ যুদ্ধে জয়ী হতে প্রাণপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসকরা। গোটা দুনিয়ার সব গবেষকরা এই ভাইরাসের টিকা আবিস্কারে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। দিন-রাত কাটাচ্ছেন নিদ্রাহীন। আক্রান্তদের চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে জীবন প্রদীপ নিভে গেছে বহু চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীর। তবুও থেমে নেই তারা। এখনও আক্রান্ত ও মৃত্যুর মিছিল চলছে বিশ্বে। এতকিছুর মাঝেও একদিন সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। মহান আল্লাহপাকের এক ইশারায় ভাইরাসমুক্ত হবে পৃথিবী। ঘুরে দাঁড়াবে বিশ্ব। সব কিছু আগের মত আবার স্বাভাবিক পর্যায়ে আসবে। ঘুরে দাঁড়াবে বিশ্ব অর্থনীতি। স্বভাবিক জীবন যাপন করবে মানুষ। এই প্রার্থনা মহান রাব্বুল আলআমিনের দরবারে। সৃষ্টিকর্তা শিগগিরই মানবজাতিকে মুক্ত করবেন। এমন প্রত্যাশা রইল। সকলের জন্য শুভ কামনা। সবাইকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা। চাই করোনা ভাইরাস মুক্ত পৃথিবী। চাই সবুজ নির্মল পৃথিবী। শুভ নববর্ষ-১৪২৭।

শাখাওয়াত হোসেন মুকুল
সভাপতি
ইন্ডিপেন্ডেন্ট জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ
সাবেক কার্য নির্বাহী সদস্য
ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)।

Sharing is caring!